কম্পিউটার এর গতি বাড়ানোর জন্য যা করবেন

কম্পিউটার এর গতি বাড়ানোর জন্য যা করবেন…

বর্তমান জীবনে কম্পিউটারের গুরুত্ব অপরিসীম। আমাদের দৈনন্দিন জীবনযাত্রা কম্পিউটার ছাড়া কল্পনা করা যাই না। সামনেও যে এটি অব্যাহত থাকবে তা সহজেই অনুমান করা যায়। বর্তমান সময়ের সঙ্গে তাল মিলিয়ে চলার জন্য এ পরিবর্তন খুবই দরকারি।

তবে কম্পিউটার একটু পুরোনো হলেই এর গতি কমে যায়। অ্যাডোবি ফটোশপ বা ভিডিও এডিটিংয়ের মতো ভারি সফটওয়্যার থাকলে কম্পিউটার দ্রুত স্লো হয়ে যায়। ফোনের মতো ঘন ঘন কম্পিউটার নতুন ক্রয় করা বা পাল্টানো যায় না।

পুরোনো কম্পিউটারের গতি বৃদ্ধির জন্য কিছু কৌশল অবলম্বন করতে হয়। এতে সুফল পাওয়া যায়। কম্পিউটারের গতি বাড়ানোর উপায় না জানা থাকলে একপ্রকার চালক বিহিন গাড়ির মতো। তাহলে জেনে নিন যেভাবে কম্পিউটারের গতি বাড়ানো যাবে-

  • পারর্ফমেন্স বুস্টার সফটওয়্যার থার্ড পার্টি অনেক সফটওয়্যার আছে যেগুলো উইন্ডোজ-১০ এর গতি বৃদ্ধি করে। এরকম অনেক সফটওয়্যারের আড়ালে থাকতে পারে ম্যালওয়্যার। চাইলে আইলো সিস্টেম মেকানিক সফটওয়্যারটি নামাতে পারেন।
  • কম্পিউটারে যে অ্যাপগুলো ইনস্টলড আছে সেগুলোও অনেক জায়গা দখল করে রাখে। এতে পিসি ওপেন হতে সময় বেশি লাগে। র‌্যামেরও উপরেও চাপ পরে। তাই অপ্রোয়জনীয় অ্যাপগুলো আনইনস্টল করতে হবে। এর জন্য প্রথমে উইন্ডোস লোগো স্টার্ট বাটনে রাইট ক্লিক করতে হবে। এরপর অ্যাপস অ্যান্ড ফিচারর্স-এ ক্লিক করলে ইনস্টলড অ্যাপের লিস্ট পাওয়া যাবে। সেখানে অ্যাপের নামের উপর ক্লিক করলেই আনইনস্টলের অপশন পাওয়া যাবে।
  • কন্ট্রোল প্যানেলে অপ্রয়োজনীয় প্রোগ্রামগুলো ডিলেট করা যাবে। স্টার্ট আপ প্রোসেসপিসি স্টার্ট করা মাত্র অনেক প্রোগ্রাম চালু হয়ে যায়। এগুলো বন্ধ করতে টাস্ক ম্যানেজার চালু করতে হবে। কন্ট্রোল+সিফট+এস্কেপ চাপলেই প্রোগ্রামটি চালু হবে। এরপর স্টার্টআপ কলাম সেকশনে ক্লিক করতে হবে। এতে থাকা প্রোগ্রাম লিস্টের উপর রাইট ক্লিক করলে ডিসঅ্যাবলড অপশনটি আসবে। এতে ক্লিক করলেই প্রোগ্রামটি আর পিসি চালু করার সময় হাজির হবে না। ডিস্ক খালি করা ডিস্ক অনেক অপ্রয়োজনীয় ফাইল, অফলাইন ওয়েব পেইজ ও ইনস্টলার ফাইল থাকে। এগুলো ডিলেট করতে স্টার্ট ম্যানুতে গিয়ে ডিস্ক ক্লিনআপ টাইপ করতে হবে। এই প্রোগ্রামের মাধ্যমে পিসিতে থাকা ৪টি ড্রাইভই একে একে বেছে নিয়ে অপ্রয়োজনীয় ফাইল ডিলিট করা যাবে। এসএসডি ইন্সটলসলিড স্টেট ড্রাইভ পিসিতে যুক্ত করলে তাতে পিসির গতি অনেক বেড়ে যায়।
  • পুরোনো পিসির গতি বাড়াতে অনেকেই আলাদাভাবে এসএসডি কার্ড সংযুক্ত করেন। এসএসডি কার্ডযুক্ত পিসিতে অ্যাডোবি ফটোশপের মতো সফটওয়্যারও লোড হয় দ্রুত গতিতে। ধারণ ক্ষমতা ভেদে এসএসডি কার্ডের দাম ভিন্ন ভিন্ন হয়ে থাকে। ভাইরাস চেকম্যালওয়্যার ঠেকাতে উইন্ডোস অপারেটিং সিস্টেম চালিত পিসিতে বিল্ট-ইন ডিফেন্ডার থাকে।
  • থার্ড পার্টি অ্যাপ নামিয়েও ভাইরাস আছে কিনা তা জানা যায়। এমনই একটি থার্ড পার্টি অ্যাপ হলো ম্যালওয়্যারবিটস অ্যান্টি-ম্যালওয়্যার। এটা ফ্রিতেই অ্যান্টি-ম্যালওয়্যার প্রোটেকশন দেবে।
  • টিপস অ্যান্ড নোটিফিকেশন বন্ধ করা অসংখ্য অ্যাপ ইনস্টল করা মানেই অগণিতবার নোটিফিকেশন পাওয়া। নোটিফিকেশনগুলো অফ রাখতে সেটিংস অ্যাপে ক্লিক করতে হবে। এরপর সার্চ বারে গিয়ে চয়েজ হুইচ অ্যাপস শো নোটিফিবেশন লিখে টাইপ করতে হবে। এরপর স্ক্রল করে দেখা যাবে কোন কোন অ্যাপ নোটিফিকেশন পাঠায়। নোটিফিকেশন অফ করতে অ্যাপের পাশে থাকা টগল বাটনটি অফ করতে হবে। এতে অসময়ে যখন তখন আর নোটিফিকেশন আসবে না। এসব পদ্ধতি মেনে চললে আপনার কম্পিউটারের গতি বাড়বে।

দীর্ঘদিন ব্যবহারের কারণে কম্পিউটারের গতি ধীরে ধীরে কমে যায়। চাইলে যন্ত্রাংশ হালনাগাদের বদলে উইন্ডোজের সেটিংস পরিবর্তন করেও কম্পিউটারের গতি বাড়ানো যায়। অ্যাডোবি ফটোশপ বা ভিডিও এডিটিংয়ের মতো ভারি সফটওয়্যার থাকলে কম্পিউটার দ্রুত স্লো হয়ে যায়। ফোনের মতো ঘন ঘন কম্পিউটার নতুন ক্রয় করা বা পাল্টানো যায় না।

তাই পুরোনো কম্পিউটারের গতি বৃদ্ধির জন্য কিছু কৌশল অবলম্বন করতে হয়। এতে সুফল পাওয়া যায়। জেনে নিন যেভাবে কম্পিউটারের গতি বাড়ানো যাবে। পুরোনো পিসির গতি বাড়াতে অনেকেই আলাদাভাবে এসএসডি কার্ড সংযুক্ত করেন। এসএসডি কার্ডযুক্ত পিসিতে অ্যাডোবি ফটোশপের মতো সফটওয়্যারও লোড হয় দ্রুত গতিতে। ধারণ ক্ষমতা ভেদে এসএসডি কার্ডের দাম ভিন্ন ভিন্ন হয়ে থাকে। ভাইরাস চেকম্যালওয়্যার ঠেকাতে উইন্ডোস অপারেটিং সিস্টেম চালিত পিসিতে বিল্ট-ইন ডিফেন্ডার থাকে।

স্টার্টআপ প্রক্রিয়া নিয়ন্ত্রণ

কম্পিউটার চালুর সময় প্রয়োজনীয় প্রোগ্রামের পাশাপাশি স্বয়ংক্রিয়ভাবে বেশ কিছু অপ্রয়োজনীয় প্রোগ্রাম চালু হয়। ব্যবহার করা না হলেও এসব প্রোগ্রাম চালু থাকার কারণে কম্পিউটারের গতি কমে যায়। উইন্ডোজ ১০-এর টাস্ক ম্যানেজার থেকে সহজেই এগুলো বন্ধ করা সম্ভব। এ জন্য কি–বোর্ডে একসঙ্গে Ctrl, Shift এবং Esc চেপে টাস্ক ম্যানেজার চালু করতে হবে। এবার Startup ট্যাবে ক্লিক করলেই কম্পিউটার চালুর সময় স্বয়ংক্রিয়ভাবে চালু হওয়া প্রোগ্রামের তালিকা দেখা যাবে। অপ্রয়োজনীয় প্রোগ্রামগুলোর ওপর মাউসের ডান বাটন ক্লিক করে Disable নির্বাচন করলেই কম্পিউটার চালুর সময় সেগুলো নিজ থেকে চালু হবে না।

জায়গা খালি করুন

কম্পিউটারের গতি বাড়ানোর জন্য হার্ডডিস্ক থেকে অপ্রয়োজনীয় তথ্য মুছে ফেলা উচিত। এ জন্য হার্ডডিস্কে সরাসরি তথ্য মুছে ফেলার পাশাপাশি Disk Cleanup কাজে লাগিয়ে অস্থায়ী ফাইলগুলো মুছে ফেলতে হবে। এ জন্য স্টার্ট মেনু থেকে Disk Cleanup লিখে সার্চ করুন। এবার ডিস্ক ক্লিনআপের ওপর ক্লিক করলেই কম্পিউটারের অস্থায়ী ফাইল, অফলাইন ওয়েব পেজ, ইনস্টলার ফাইলের মতো অপ্রয়োজনীয় ফাইল ও তথ্য মুছে যাবে।

সার্চ ইনডেক্সিং বন্ধ রাখুন

সার্চ ইনডেক্সিং সুবিধা কম ক্ষমতার কম্পিউটারকে ধীরগতির করে দেয়। আপনি যদি কাজের প্রয়োজনে নিয়মিত কম্পিউটারে ফাইল–ফোল্ডারের খোঁজ করেন, তাহলে সার্চ ইনডেক্সিং বেশ কার্যকর। যদি না করেন, তবে সার্চ ইনডেক্সিং সুবিধা বন্ধ করে রাখতে পারেন। এ জন্য স্টার্ট মেনুতে গিয়ে লিখুন index। এবার Indexing Options–এ ক্লিক করে Modify বাটনে ক্লিক করুন। যে ফোল্ডারগুলোকে ইনডেক্সে রাখার দরকার নেই, সেগুলোর বামে টিকচিহ্ন তুলে দিয়ে OK চাপুন। এবার Advanced বাটনে ক্লিক করে File Types অপশন থেকে অপ্রয়োজনীয় ফাইল বাদ দিয়ে OK চাপুন।

আমাদের পোষ্টটি আপনাদের কাছে কেমন লেগেছে। ভালো লেগে থাকলে কমেন্ট সেকশনে আমদেরকে কমেন্ট করুন।

Leave a Comment