নাথিং ফোন ব্যবহারকারীরা যেসব সমস্যা ফেস করছেন

নাথিং মোবাইল ব্যবহারকারীরা যেসব সমস্যা ফেস করছেন…

মাত্র কয়েকদিন আগেই মুক্তি পেলো নাথিং ব্র‍্যান্ডের প্রথম ফোন, নাথিং ফোন (১)। সদ্য মুক্তি পাওয়া এই ফোন হাতে পেতে আগ্রহের শেষ নেই বিশ্বের স্মার্টফোন প্রেমীদের। তবে দুঃখের বিষয় হলো সবার অত্যন্ত প্রিয় নাথিং ফোন (১) এ দেখা দিয়েছে বেশ কিছু হার্ডওয়্যার ও সফটওয়্যার ইস্যু।

নাথিং ফোন ওয়ান কেনার পর ব্যবহারকারীরা এই ফোনের মধ্যে বিভিন্ন ধরনের সমস্যা খুঁজে পেয়েছে। তবে নাথিং ফোন ওয়ানে সফটওয়্যার জনিত সমস্যাগুলো কোম্পানি আপডেটের মাধ্যমে ঠিক করতে পারবে, তবে হার্ডওয়ার জনিত সমস্যাগুলো নিয়ে তাদেরকে অনেক ব্যাগ পোয়াতে হবে। এই পোস্টে ব্যবহারকারীরা নাথিং ফোন (১) নিয়ে যেসব সমস্যার সম্মুখীন হচ্ছেন সেসব সম্পর্কে জানার চেষ্টা করবো। পুরো ইন্টারনেট ঘুরে আমরা খুঁজে বের করেছি নাথিং ফোন (১) নিয়ে ব্যবহারকারীদের বিভিন্ন অভিযোগ ও সমস্যাগুলো। তাহলে চলুন নাথিং ফোন ১ এর সমস্যাগুলো জেনে নেই…

সেল্ফি ক্যামেরার পাশে ডেড পিক্সেল

অনেক নাথিং ফোন (১) ব্যবহারকারী তাদের ফোনের সেল্ফি ক্যামেরার পাশে ডেড পিক্সেল দেখা যাওয়ার সমস্যা জানিয়েছেন। এই স্ক্রিনের আশেপাশে সবুজ রং ছেড়ে যায় এই ডেড পিক্সেল। অনলাইনে দেখা গেছে, নাথিং ফোন (১) ইউনিটের অনেকগুলোতে এই সমস্যা দেখা দিয়েছে।

Dead Pixel Fix অ্যাপ ব্যবহার করে নাথিং ফোন (১) এর ডিসপ্লেতে থাকা ডেড পিক্সেল বেশ সহজে চিন্হিত করা যায়। এটি একটি হার্ডওয়্যার সম্পর্কিত সমস্যা হওয়ায় এর সমাধান করতে বেশ বেগ পোহাতে হবে নাথিং এর। তবে এই সমস্যার সমাধান নিয়ে অফিসিয়ালি এখনো কোনো জানতে পারিনি নাথিং এর পক্ষ থেকে।

ডিসপ্লেতে গ্রিন টিন্ট

নাথিং ফোন (১) এর আরো একটি ডিসপ্লে ইস্যু নিয়ে মাতামাতি হচ্ছে অনেক অনলাইনে, সেটি হচ্ছে ফোনের ডিসপ্লে বোটমে গ্রিন টিন্ট বা সবুজ রং দেখতে দেখা যাওয়া। বিশেষ করে, ডার্ক মোড চালু করার পরে সবচেয়ে বেশি ডার্ক এরিয়াগুলোতে এই সমস্যা চোখে পড়ে।

ব্যবহারকারীদের অভিজ্ঞতা বিবেচনা করলে এই সমস্যা অনেক গুরুতর। নাথিং এর পক্ষ থেকে নাথিং ফোন (১) এর এই সমস্যাগুলো সম্পর্কে এখনো কোনো প্রকার সমাধান প্রদান করা হয়নি।

ব্যাক ক্যামেরা মডিউলে ময়েশ্চার

নাথিং ফোন (১) আইপি৫৩ রেটিং প্রাপ্ত হলেও পিছনের ক্যামেরা মডিউল এর গ্লাস কভার ও এর আশেপাশের নিচে অনেক ব্যবহারকারীরা ময়েশ্চার বা আদ্রতা জমা হতে দেখেছে। নিরাপত্তার কারণে ফোনে এই ধরনের সমস্যা ভালো কিছু নয়। এই সমস্যার সমাধান হিসেবে সমস্যাযুক্ত ইউনিট রিপ্লেসমেন্ট করিয়ে নেওয়ার পরামর্শ প্রদান করেছে নাথিং।

ডাস্ট প্রবলেম

নাথিং ফোন (১) এর কিছু ইউনিটে ডাস্ট নিয়ে বেশ ঝামেলায় পড়েছেন ব্যবহারকারীগণ। একজন ব্যবহারকারী তো তার নাথিং ফোন (১) রিপ্লেস করিয়ে নেওয়ার পরেও রিপ্লেস করা ইউনিটেও একই সমস্যা পেয়েছেন। নাথিং ফোন (১) এর এই ডাস্ট প্রবলেম ব্ল্যাক ভ্যারিয়েন্টে দেখা গিয়েছে। এসেম্বলি করার পরিবেশের দ্বারা এই সমস্যা তৈরী হয়েছে বলে আন্দাজ করছেন অধিকাংশ এক্সপার্ট।

ব্লুটুথ কানেকটিভিটি ইস্যু

এবার কথা বলা যাক নাথিং ফোন (১) এর সফটওয়্যার ইস্যু নিয়ে। কয়দিন আগে একজন ব্যবহারকারী তার নাথিং ফোন (১) ইউনিটে ব্লুটুথ হেডফোন কানেক্টে সমস্যার সম্মুখীন হয়েছেন বলে জানান রেডিটে। একজোড়া বোন কনডাকশন হেডফোন তার ফোনের সাথে কানেক্ট করতে গিয়ে উক্ত ব্যক্তি দেখেন এই ফিচার কাজ করছেনা। ফোন রিস্টার্ট করার পরামর্শ স্ক্রিনে ভেসে উঠলেও এই প্রক্রিয়া অনুসরণ করেও সমস্যার সমাধান হয়নি।

তবে যে ব্যাক্তি এই সমস্যা নিয়ে পোস্ট করেছে তিনি নিজেই এই সমস্যার সমাধান করেছে। মিডিয়া অডিও বন্ধ ও ব্লুটুথ সেটিং থেকে কল করে পুনরায় চালু করার মাধ্যমে এই সমস্যার সমাধান করেছে উক্ত ব্যবহারকারী। আপাতত এই সমস্যা এইভাবে সমাধান করা যেতে পারে৷৷ ভবিষ্যতে সফটওয়্যার আপডেটে এই সমস্যা দূর হয়ে যাবে বলে আশা করা যায়।

ফোন আনলকের পর ল্যাগ করা

একজন ব্যবহারকারী তার নাথিং ফোন (১) প্রতিবার আনলক করার পর বেশ বাজেভাবে ল্যাগ এর শিকার হয়েছেন বলে জানান রেডিটে। এমনকি ফোন রিসেট, লক/আনলক বা বিভিন্ন অ্যাপ ক্লোজ করেও এই সমস্যার কোনো সুরাহা করতে পারেননি উক্ত ব্যবহারকারী। ফোন রিসেট এর মাধ্যমে হয়ত এই সমস্যার সমাধান করা যেতে পারে, তবে উক্ত ব্যক্তি এই সমাধান অনুসরণ করেছেন কিনা সে বিষয়ে এখনো জানা যায়নি।

নাথিং ফোন (১) নিয়ে কিছু কথা

মজার ব্যাপার হলো, এই ফোনের পেছনের দিকটা অনেকটা উম্মুক্ত মনে হবে। পেছনে ব্যবহৃত স্ক্রর মাথাগুলো দেখা যায়। আর সুন্দর করে জড়িয়ে আছে এলইডি লাইটের নকশা। ফোন এলে কিংবা কোনো নোটিফিকেশন আসলে সেসব নকশা করা বাতি জ্বলে ওঠে। বলা যায়, এই অংশটাই নাথিং ফোনের সিগনেচার। নাথিং ফোনের ভাষায় এটা ‘গ্লিফ’। যদিও কেউ কেউ মনে করছেন, এই বাতির ডিজাইন বা নকশা হয়তো কারো কাছে বিরক্তির কারণ হতে পারে।

দামের দিক থেকে এটাকে বাজেটেড ফোনই ধরা হয়। ৩৯৯ পাউন্ড বা ৪৮০ ডলার। আইফোন কিংবা স্যামসাং ফ্ল্যাগশিপ ফোনের তুলনায় বাজেট ফোনই বলা চলে। যদিও এসব ফোনের সঙ্গে প্রতিযোগিতা করতেও আসেনি নাথিং ফোন। তাই বলা যায় মিড রেঞ্জের এই ফোন নিজস্ব একটা ধারা সৃষ্টি করতেই বাজারে এসেছে।

লন্ডনভিত্তিক এই কোম্পানির প্রথম ফোন ১৬ জুলাই থেকে লন্ডনে বিক্রি শুরু হয়েছে। বিশাল ডিসপ্লে নিয়ে এসেছে নাথিং ফোন। ৬.৫৫ ইঞ্চির ডিসপ্লে-তে ভিডিও দেখা যাবে ২৪০০*১০৮০ রেজুলেশনে। এতে ব্যবহার করা হয়েছে কোয়ালকম স্ন্যাপড্রাগনের ৭৭৮জি প্রসেসর। ৫০ মেগাপিক্সেলের ক্যামেরাও যেকোনো উচ্চমানের মোবাইল ফোনের সঙ্গে প্রতিযোগিতা করে ছবি তুলতে সক্ষম।

কোম্পানির ভাষ্য অনুসারে, তারা পরিবেশবান্ধব একটি প্রযুক্তি মানুষকে উপহার দিতে চায়। তাই নাম থেকে শুরু করে ফোনের প্রতিটা পরতে পরতে জড়িয়ে আছে সাধারণ্য। এখন দেখার বিষয় ভোক্তা বা গ্রাহক এই ফোনকে কিভাবে গ্রহণ করে।

নাথিং ফোন (১) এর এসব সমস্যাগুলো সম্পর্কে আপনাদের মতামত কী? মোবাইলটি কি তাদের প্রতিশ্রুতির ন্যায় অভিজ্ঞতা প্রদান করতে সমর্থ হয়েছে? ফোনটির বর্তমান অবস্থা বিচারে করে নাথিং এর ভবিষ্যৎ নিয়ে আপনার চিন্তাভাবনা আমাদেরকে কমেন্ট সেকশনে জানান।

Leave a Comment